Amii Misir Ali | আমিই মিসির আলি PDF - হুমায়ূন আহমেদ

Amii Misir Ali | আমিই মিসির আলি PDF – হুমায়ূন আহমেদ

Amii Misir Ali PDF বাংলা বই। আমিই মিসির আলি PDF হুমায়ূন আহমেদ এর লেখা একটি বাংলা উপন্যাস বই। এটি হুমায়ূন আহমেদ লেখা মিসির আলি সিরিজের একটি জনপ্রিয় উপন্যাস এবং বইটিতে মোট ৯৫ পাতা রয়েছে। মিসির আলি সিরিজের এটিও একটি অসাধারণ রহস্যময় বই। আমিই মিসির আলি বইটির PDF আমরা সংগ্রহ করেছি যার সাইজ মাত্র ১০ এমবি। বইটি অন্যপ্রকাশ প্রথম ২০০০ সালে প্রকাশ করে। আপনাদের সুবিধার্থে আমরা বইটির পিডিএফ ফাইল লিংক নিচে শেয়ার করলাম যা থেকে আপনারা বইটি পড়তে এবং ডাউনলোড করতে পারবেন।

ফ্ল্যাপে লেখা কিছু কথাঃ

মিসির আলি খুব সাধারণ একজন মানুষ। সাধারণ এবং বিশেষত্বহীন। থাকেন একা। নিজে রেঁধে খান। রোজই এক তরকারি। চাল-ডাল এবং সবজির খিচুড়ি । রান্না তেমন ভালো হয় না, তারপরেও খুব তৃপ্তি করে খান। তাঁর গান শোনার খুব শখ ছিল। একবার কিছু টাকা পেয়ে বেশ দামি ক্যাসেট প্লেয়ার কিনেছিলেন। যেদিন কিনলেন তা পরদিনই ক্যাসেট প্লেয়ারটা চুরি হয়ে গেল। চোর কী মনে করে যেমন ক্যাসেটগুলি নেয় নি। এখন মাঝে মাঝেই তাঁকে দেখা যায়- ক্যাসেট হাতে নিয়ে চুপচপাপ বসে আছেন। কল্পনায় গানগুলি শোনার চেষ্টা করছেন। এই সময় তিনি সামান্য মাথাও দোলান। এর থেকে মনে করা যেতে পারে কল্পনায় গানগুলি শুনে তিনি খুব আনন্দ পাচ্ছেন। আমার পরম সৌভাগ্য আমি এই সাধারণ বিশেষত্বহীন মানুষটির কিছু গল্প আপনাদের শোনাতে পেরেছি। সাধারণ মোড়কে মোড়া এমন অসাধারন একজনের গল্প বলতে আমার কিছু সমাস্যাও হয়। বারবার মনে হয়-আমি মানুষটির কথা ঠিক ঠিক বলতে পারছি তো? ভুল হচ্ছে না তো? যে প্রগাঢ় মমতা তিনি মানুষের জন্যে লালন করেন তা খানিকটা হলেও উঠে আসছে তো? মানুষটির প্রতি আমর নিজের শ্রদ্ধা এবং ভালবাসা আমি কি পারছি ঠিকঠাক প্রকাশ করতে?

ডাউনলোড  /  অনলাইনে পড়ুন

কোন এক মধ্যদুপুরে প্রফেসর মিসির আলির দরজায় লিলি নামে এক পঁচিশ ছাব্বিশ বয়সী কাজল পড়া এক মেয়ে কড়া নাড়ল।সে মিসির আলি সাহেবের কাছে একটা চিঠি নিয়ে এসেছে।চিঠিটায় তাঁকে তার স্বামীর বাড়ি পদ্মার তীরে যাওয়ার জন্য টোপ হিসেবে পাঠানো হয়েছিল।তার স্বামীর লিখা চিঠিতে পাঁচটি টোপ ছিল।টোপগুলো তার জন্য যথেষ্ট লোভনীয় ছিল।তার মাঝে একটা ছিল The Other Mind বইটি। কিন্তু তিনি টোপ গিললেন না।

তবে শেষপর্যন্ত তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি যাবেন। . অবশেষে তারা পোঁছালেন লিলির স্বামীর বাড়িতে।বাড়ির নাম ‘ধ্বংসস্তূপ’ হলেও দামী আসবাব আর আধুনিক ছিল সে বাড়ি আর কিছুটা রহস্যময় ও। লিলির স্বামীর বাড়ির কাছে বেশ প্রাচীন একটা কালি মন্দির আছে।কৌতুহলবশত সেখানে গিয়ে তিনি আবিস্কার করলেন মন্দিরে অধিষ্ঠান কালি মূর্তিটি দেখতে হুবহু লিলির মত।কথিত আছে,যে অশ্বিনী বাবু মন্দিরটি বানানোর পর তিনি তার তিন কন্যা কে ধড় থেকে মাথা আলাদা করে হত্যা করেছিল। .

প্রিয় পাঠক,এরপর মিসির আলি সাহেবের সাথে ঘটতে লাগল রহস্যময় আর আতংকজনক কিছু কাহিনী। বইটির টান টান উত্তেজনাময় কাহিনী আর রহস্যময় অতিপ্রাকৃত ঘটনাগুলো আপনাকে বইটির শেষ পৃষ্ঠা পর্যন্ত পড়ে যেতে বাধ্য করবে। আমার ভাল লেগেছে। আপনিও পড়ে দেখতে পারেন।

You May Also Like

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।